বিশ্ব জয় করে দেশে ফিরছেন তাকরীম, বিমানবন্দরে নেয়নি সংবর্ধনা!

দুবাইয়ে আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করে দেশে ফিরেছেন বাংলাদেশের বিস্ময়কর বালক হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরীম।

জানা যায়, আজ বুধবার (৫ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে এক বিশেষ ফ্লাইটে শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন হাফেজ তাকরীম। সঙ্গে ছিলেন তার উস্তাদ, মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী ঢাকার প্রিন্সিপাল মুফতি মুরতাজা হাসান ফয়েজী মাসুম। কিন্তু ইফতারের সময় সন্নিকটে হওয়ায় তারা বিমানবন্দর থেকে মাগরিবের নামাজের পর বের হন।

এদিকে এবার বিমানবন্দরে কোনো তাকরীমকে কোনো সংবর্ধনা না দেয়ার অনুরোধ করেছিলেন মুফতি মুরতাজা হাসান ফয়েজী মাসুম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করা এক পোস্টের মাধ্যমে তিনি জানান, বঙ্গ বাজার মার্কেটের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের কারণে দেশের মানুষ এখন বিষাদগ্রস্ত। যদিও তাকরীমের বিশ্বজয়ের সংবাদে মানুষের মনে সেই বিষাদের রেশ কিছুটা কমেছে। তবুও সহায়-সম্বল হারানো মানুষের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করে এবার বিমানবন্দরে কোনো সংবর্ধনা নেবে না বিশ্বজয়ী হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম।

তিনি লিখেন, বাংলাদেশের মানুষ বরাবরই ধর্ম প্রিয়, কুরআন প্রিয়। সদ্য দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী ঢাকা’র কিতাব বিভাগের ছাত্র সালেহ আহমাদ তাকরীমের বিশ্বজয় মানে- কোটি কোটি দেশপ্রেমিক, কুরআন প্রেমিকদের বিশ্বজয়।

তিনি আরো লেখেন, বিশ্বজয়ী এ হাফেজকে বরণ করার জন্য বিমানবন্দরে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতি ঘটা খুবই স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু গতকাল বঙ্গ বাজার মার্কেটের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে হাজার হাজার মানুষের স্বপ্ন পুড়ে যাওয়ায়, তাদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করত: সকল ধরনের সংবর্ধনা,শোডাউন ইত্যাদি থেকে বিরত থাকার জন্য তৌহিদী জনতার প্রতি ফয়জুল কুরআন পরিবারের পক্ষ থেকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

অপরদিকে কুরআনের প্রেমে বিমানবন্দরে ছুটে যান শত শত মানুষ। তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয় অনেকে।

এর আগে, সৌদি আরব ও ইরানে আয়োজিত দুটি আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় যথাক্রমে প্রথম ও তৃতীয় স্থান অর্জন করে তাকরিম। হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরিম মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী ঢাকার কিতাব বিভাগের ছাত্র। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানার ভাদ্রা গ্রামে। তার বাবা হাফেজ আবদুর রহমান একজন মাদরাসা শিক্ষক আর মা গৃহিণী ।